সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১১:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
‘হাবিবি’ নিয়ে আসছেন নুসরাত ফারিয়া “এসো নিজেকে নিজে চিনি” পরিবার আয়োজিত বাউল গানের প্রতিযোগিতার গ্রান্ড ফিনালে ২০ অক্টোবর শুধুমাত্র অনুদানের সিনেমা দিয়েই মুখর সিনেপাড়া বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ ও স্কটল্যান্ডের সম্ভাব্য একাদশ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দেখা যাবে যেসব চ্যানেলে ‘বাংলাদেশকে আমরা পাপুয়া নিউগিনির চেয়ে ওপরে দেখি না’: স্কটল্যান্ড কোচ শেন বার্জার টি ২০ বিশ্বকাপ ওমান ও সংযুক্ত আরব আমিরাতে আজ শুরু ইভ্যালির ওয়েবসাইট-অ্যাপ বন্ধের ঘোষণা কুমিল্লার ঘটনার পেছনের কারণ খোঁজা হচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ‘দেশ বিক্রি করে তো আমি ক্ষমতায় আসব না’ এটাই বাস্তব

মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর ‘লেডিস এ্যান্ড জেন্টেলম্যানস’

হেলাল মাহমুদ তন্ময়
  • প্রকাশ সময়ঃ শনিবার, ২৪ জুলাই, ২০২১
  • ৫১ বার পড়া হয়েছে

ছোটবেলায় সহপাঠীদের বড় হয়ে “কী হতে চায়” সেটা নিয়ে এক ধরনের দ্বিধা-দ্বন্দ্বে ভুগতে দেখতাম। আজকে বলছে আকাশে প্লেন উড়াবে, তো কালকে বলছে ডাক্তার হয়ে গরিব-দুঃখীর সেবা (অবশ্যই দাতব্য, তখনো আয়-রোজগারের দাঁত কারোরই গজায় নি) করবে। গতকাল লেডিজ এ্যান্ড জেন্টেলমেন নাম্নী ওয়েব সিরিজটি দেখে মনে হলো সে ও একই সমস্যায় ভুগছে — সে কি হতে চায় তা সে নিজেও জানে না।

মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর যেকোনো প্রোডাকশন দেখতে বসা মানে রাশিয়ান র‍্যুলেটের টেবিলে নিজের ভাগ্য পরীক্ষা করানো — এই জুয়ায় হার-জিতটা ঠিক আপনার হাতে নেই। আমি যেমন ট্রেইলার আর সিনোপসিসের ধাঁধায় পড়ে চতুর্থ পর্বে গিয়েই হোঁচট খেলাম আর ভাবলাম, “i didn’t sign up for what this is turning out to be!” দুর্দান্ত সম্ভাবনাময় একটা প্রেমিস ছিলো সোশ্যাল কমেন্টারি আর ক্যারেক্টার এনালিসিসের — প্রথম কয়েক এপিসোডে সেটা যাচ্ছিলোও বেশ। কিন্তু ৩/৪ পর্বে ইতি না টেনে হুট করেই যখন সেটা নব্য ভারতীয় ক্রাইম থ্রিলার ওয়েব সিরিজগুলোর মতো হওয়ার ব্যর্থ প্রয়াসে লেগে গেলো (ব্যক্তিগত অভিমত, অনেকের এমনটা না ও লাগতে পারে), তখনই এই ওয়েব সিরিজটির তার সম্ভাবনা ও গ্রহণযোগ্যতা হারালো। শেষে মেইল ইগো আর ম্যাসকুলিনিটিকে যে এক হাত নেয়া হয়েছে তা যুতসই লাগে বৈকি, কিন্তু সেই পর্যন্ত যেতে যে নানান কিসসা-কাহিনি ফাঁদা হয়েছে তা শুধুমাত্র বিরক্তির উদ্রেক করে। পুলিস প্রোসিডিউরাল সাবপ্লটগুলো ছিলো খুবই মেকি এবং অবাস্তবিক — মনে হচ্ছিলো ভুলক্রমে অন্য কোনো প্রোডাকশনের ফুটেজ জুড়ে দেয়া হয়েছে। বারংবার বিভিন্ন আজগুবি চরিত্র এবং সাবপ্লটের অবতারণা করা হয়েছে, যেগুলোকে ফিলার বৈ আর কিছু বলার উপায় নেই। মোদ্দাকথা, এই ওয়েব সিরিজটি তার নিজের আইডেন্টিটি নিয়েই বিভ্রান্ত ছিলো, যেটাকে চাইলেই লাগাম টেনে উচ্চমানের একটি মিনি সিরিজে রূপ দেয়া যেতো।

অভিনয়ে অনেক নামজাদা জাত অভিনেতার দেখা মেলে — যাদের একাংশ হতাশ করলেও আমার দৃষ্টিতে বেশিরভাগই উৎরে গেছেন। বিশেষত মামুনুর রশীদ এবং আফজাল হোসাইন তাদের নিজ নিজ চরিত্রের চিত্রায়ণে মুন্সিয়ানা দেখিয়েছেন। কেন্দ্রীয় চরিত্রে তাসনুভা ফারিনের অভিব্যক্তি ও বাচনভঙ্গি দেখে মনে হয়েছে তিশা ভেন্ট্রিলোকুইজমের সাহায্যে ফারিনের মুখ দিয়ে অভিনয়টা করিয়ে নিয়েছেন। যেটা দাঁড়িয়েছে সেটাও খারাপ হয়নি, তবে অভিনয়ে স্বকীয়তা দেখতে না পারাটা হতাশাজনক।

জি ফাইভ প্ল্যাটফর্মে মাত্র ১৪ টাকায় ৭ দিনের সাবস্ক্রিপশন নেয়া যায়, তাই অনুতাপের খুব একটা অবকাশ নেই। তবে সময় মূল্যবান — সেইসাথে আকাঙ্ক্ষাও। সময় ও আকাঙ্ক্ষার যে বিনিয়োগ আমি করেছিলাম, তা নিঃসন্দেহে “জামানত বাজেয়াপ্ত” হয়েছে।

সূত্রঃ ফেসবুক পোস্ট

দয়া করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved © 2021 Janatarnissash
Theme Dwonload From